চর্ম ও যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ

সাইক ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক ল্যাব

  বিশেষজ্ঞঃ চর্ম ও যৌনরোগ

মানব দেহের প্রতিটি অঙ্গেরই আলাদা সমস্যা আলাদা আলাদা রোগ হয়ে থাকে। ঠিক তেমন কিছু সমস্যা যৌনাঙ্গেও হয়ে থাকে। আর যৌনরোগ মানেই শুধুমাত্র এইডস নয়। যৌনরোগ বা যৌন সংসর্গের ফলে সংক্রামিত রোগের সংখ্যা নেহাত কম নয়। ঠিক সময়ে চিকিৎসা না হলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। সব সময় যে অুবাধ সঙ্গমের ফলেই এই ধরনের রোগ হয় তা নয়, কোনও একজন আক্রান্ত ব্যক্তির সঙ্গে বহুবার শারীরিক সম্পর্কের ফলেও এই রোগ হতে পারে। পুরুষ ও মহিলা উভয়েই সমানভাবে আক্রান্ত হতে পারেন এই সব রোগ থেকে। কয়েকটি যৌন রোগের নাম ও লক্ষণ নিম্নে বর্ণনা করা হল।

ক্ল্যামিডিয়া :যোনি এবং পুরুষাঙ্গ থেকে অস্বাভাবিক ক্ষরণ এই রোগের লক্ষণ। গড়ে ৫০ শতাংশ পুরুষ ও ৭০ শতাংশ মহিলাদের মধ্যে এই রোগ দেখা যায়। দ্রুত চিকিৎসা করলে সেরে ওঠা সম্ভব। ক্ল্যামিডিয়া হলে খুব সহজেই অন্যান্য যৌনরোগ বাসা বাঁধে শরীরে।

গনোরিয়া : সচরাচর ক্ল্যামিডিয়া এব‌ং গনোরিয়া একই সঙ্গে হয়। যোনি বা পুরুষাঙ্গ থেকে অস্বাভাবিক ক্ষরণ, মূত্রত্যাগ করার সময় যন্ত্রণা ইত্যাদি এই রোগের লক্ষণ। চিকিৎসা না করলে সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে এই রোগ।

যৌনাঙ্গে হার্পিস : ৮০ শতাংশ মানুষ যাদের যৌনাঙ্গে হার্পিস রয়েছে তারা জানেন না, তাদের শরীর আসলে একটি বিশেষ ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত। অজান্তেই তারা সঙ্গী বা সঙ্গিনীর শরীরে সংক্রামিত করেন এই ভাইরাস। যৌনাঙ্গে ছোট ছোট ফোস্কার মতো র‌‌্যাশ এই রোগের লক্ষণ। ফোস্কা পরার বেশ কয়েক ঘণ্টা আগে থেকে চুলকানির অনুভূতি হয় যৌনাঙ্গে। একটি নির্দিষ্ট সময় অন্তর বার বার এই র‌্যাশগুলো বেরতে থাকে।

সিফিলিস : প্রাচীনকাল থেকেই এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে মানুষ। ঠিক সময়ে ধরা পড়লে সাম্প্রতিককালে সহজেই সারানো যায় এই রোগ। কিন্তু রোগ বেড়ে গেলে তা সাংঘাতিক যন্ত্রণাদায়ক। যৌনাঙ্গ, পায়ু এবং মুখে আলসার হয়, এমনকী চোখ এবং মস্তিষ্কও আক্রান্ত হয়। যৌনরোগগুলোর মধ্যে অন্যতম মারণ রোগ। তবে প্রাথমিক অবস্থায় এই রোগের লক্ষণ শরীরে চট করে ধরা পড়ে না।

যৌনাঙ্গে আঁচিল বা ওয়ার্ট : যৌনাঙ্গ এবং পায়ুর আশেপাশে আঁচিলের মতো র‌্যাশ এক ধরনের যৌন রোগ। একত্রে একসঙ্গে অনেকগুলো আঁচিল দেখা যায়। হিউম্যান প্যাপিলোমাভাইরাস, যা সার্ভিক্যাল ক্যানসারের কারণ এবং যৌন সংসর্গে এক শরীর থেকে অন্য শরীরে ছড়ায়, তাই এই রোগের জন্ম দেয়। অনেক সময় এই আঁচিলগুলো ফোস্কার মতো হয় আবার অনেক সময় এগুলো আলসারেও পরিণত হতে পারে।

হেপাটাইটিস বি : অনেকেই হয়তো জানেন না, এই রোগটিও যৌন সংসর্গের ফলে ছড়ায়। একইভাবে ছড়াতে পারে হেপাটাইটিস এ এবং হেপাটাইটিস সি তবে তার সংখ্যা খুবই কম। লিভার সংক্রান্ত জটিলতা, মূত্রের রং পরিবর্তন, গা বমি ভাব ইত্যাদি এই রোগের লক্ষণ হতে পারে।

এইচআইভি : এইচআইভি ভাইরাস মারণ নয় কিন্তু এই রোগের মূল লক্ষণ শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা ভেঙে পড়া। তাই এই ভাইরাস শরীরে থাকলে অন্য যে কোনও কঠিন রোগ হলে তা মারণ আকার ধারণ করে।

ট্রাইকোমোনিয়াসিস : যৌনাঙ্গ থেকে অস্বাভাবিক ক্ষরণ, যৌনক্রিয়ার সময় যৌনাঙ্গে যন্ত্রণা এবং মূত্রত্যাগের সময় যন্ত্রণা এই রোগের লক্ষণ যদিও সঠিক চিকিৎসায় দ্রুত সেরে ওঠা সম্ভব।

ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজাইনোসিস : যোনি থেকে নিঃসরণে দুর্গন্ধ এই রোগের লক্ষণ। অন্যান্য রোগের তুলনায় এই রোগ খুব সহজেই সেরে যায়।

ত্বক শরীরের একক বৃহৎ অঙ্গ। সুস্থ ত্বক শরীরের রোগ প্রতিরোধের জন্য অত্যাবশ্যক, বলা হয়ে থাকে ‘ফাস্ট লাইন ডিফেন্স’। শরীরের অনাবৃত অংশে কোনো ধরনের সমস্যা দেখা দিলে সাধারণত চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে থাকেন কিন্তু আবৃত অংশের সমস্যা হলে গাফিলতি করার প্রবণতা লক্ষ করা যায়। মনে রাখবেন, ত্বকের সমস্যাকে অবহেলা করা যেমন অনুচিত তেমনই অপচিকিৎসা করাটাও ক্ষতিকর। অনেক ক্ষেত্রে রোগীরা অসচেতন এবং লক্ষণ সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা না থাকার কারণে চিকিৎসা নিতে দেরী করেন। ত্বকের রোগে সাধারণত নিম্নবর্ণিত পরিবর্তনগুলো পরিলক্ষিত হয়।

চুলকানি : ত্বকের বহু রোগের সমস্যা হিসেবে চুলকানি দেখা দেয়। রোগের ধরন এবং তীব্রতা অনুযায়ী চুলকানির মাত্রা কমবেশি হতে পারে। সাধারণত চুলকানির কারণে নখ দিয়ে জায়গাটিকে আঁচড় দিতে ভালো লাগে। খোসপাঁচড়া, ছত্রাকজনিত রোগ, একজিমা, পোকার কামড় ইত্যাদিতে চুলকানি একটি লক্ষণ হিসাবে প্রকাশ পেতে পারে।

ব্যথা : রোগের ধরন এবং তীব্রতা অনুসারে ব্যথা কম বা বেশি হতে পারে। ব্যথা অনেক ধরনের চর্ম রোগের লক্ষণ হিসেবে দেখা দিতে পারে। হারপিজ জোস্টার, পোকার কামড় ইত্যাদির ক্ষেত্রে ব্যথা তীব্র হতে পারে।

অসাড়তা বা অবশ : কিছু রোগে ত্বকের কোনো কোনো স্থানে অসাড়তা লক্ষ করা যায়, যেমন কুষ্ঠ রোগী। আবার কিছুরোগের কারণে ত্বক অতিমাত্রায় সংবেদনশীল হয়ে থাকে।

ত্বকের রঙ পরিবর্তন : জন্মগতভাবে মানুষ গায়ের রং অর্জন করে থাকে। রোগবিশেষ কিছু স্থানে রঙ গাঢ় বা হালকা হতে পারে। যেমন মেছতার ক্ষেত্রে রং গাঢ় আবার শ্বেতীর কারণে হালকা হতে পারে।

মসৃণতা ও উজ্জ্বলতা : সুস্থ ত্বক সাধারণত মসৃণ ও উজ্জ্বল হয়ে থাকে। বহু রোগে ত্বকের স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা নষ্ট হতে পারে এবং খসখসে হয়ে যায়। কুচকানো ত্বক অনেক রোগের লক্ষণ হিসেবে প্রকাশ পেতে পারে, যেমন ইকথায়োসিস। বয়সের কারণে ত্বক কুচকাতে পারে, যা স্বাভাবিক।

ফোসকা/চামড়া উঠে যাওয়া/ক্ষত : ত্বকের অনেক রোগের লক্ষণ হিসেবে এ লক্ষণসমূহ আবির্ভূত হতে পারে।

উল্লেখিত লক্ষণসমূহ ছাড়াও আরো অনেক লক্ষণ ত্বকের রোগে প্রকাশ পেতে পারে। সাধারণভাবে এগুলোর ব্যাপারে সামান্য সতর্ক হলেই সময়মতো চিকিৎসা গ্রহণ করা সম্ভব। মনে রাখবেন ত্বকের রোগ ছাড়াও অন্যান্য রোগের লক্ষণ হিসেবেও ত্বকের পরিবর্তন হতে পারে।গোসলের সময় অন্তত আপনার শরীরের ত্বকের দিকে নজর দিন। কোনো প্রকার অস্বাভাবিকতা লক্ষ করলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে ভুলবেন না।

  ডাক্তারঃ চর্ম ও যৌনরোগ

অধ্যাপক ডাঃ শাহীন রেজা চৌধুরী

চর্ম ও যৌনরোগ বিশেষজ্ঞ

ডাঃ শিহান তাওসিফ

চর্ম, যৌন ও অ্যালার্জি বিশেষজ্ঞ

ডাক্তার সিরিয়াল/অ্যাপয়েন্টমেন্ট

অনলাইন অ্যাপয়েন্টমেন্ট পেতে নিচের বাটনে ক্লিক করুন