ইমিউনোলজি

সাইক ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক ল্যাব

  সার্ভিসঃ ইমিউনোলজি

অসংক্রামক রোগের চিকিৎসায় পূর্বোক্ত উপশমকারী চিকিৎসা পদ্ধতিগুলোর বিকাশের পাশাপাশি ইমিউনোলজি বা রোগপ্রতিরোধ বিদ্যা নিয়ে বিজ্ঞানীরা গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এর ফলে অসংক্রামক রোগের কারণ হিসাবে জীবাণু এবং জীবাণু দ্বারা সৃষ্ট এ্যান্টিজেন বা রোগবিষের সাথে রোগপ্রতিরোধ বাহিনীর সদস্যদের লড়াই জনিত উদ্ভুত নানাবিধ প্রক্রিয়াকে সনাক্ত করা সম্ভব হলো। শ্বেতকণিকা এবং অন্যান্য রোগপ্রতিরোধ বাহিনীর সদস্যদের দ্বারা রোগবিষ ধবংস করার সময় সুস্থ দেহকোষকে ক্ষতিগ্রস্থ করার ফলে সৃষ্ট প্রতিক্রিয়া (ইমিউন রিএ্যাকশন ডিজিজ) কিংবা দেহের প্রয়োজনীয় উপাদান সমুহকে শত্রু ভেবে ধবংস করা (অটোইমিউনিটি) কিংবা বহিরাগত শত্রুকে ধ্বংস না করে ইচ্ছামত দেহের ভিতর বসবাস করে দেহের ক্ষতিসাধন করতে দেওয়া (ইমিউনোডিফিশিয়েন্সি ) এই তিন রকম প্রতিক্রিয়ার ফলে দেহের প্রায় শতকরা ৯৯ ভাগ অসংক্রামক রোগের সৃষ্টি হয়ে থাকে । নন-ইনফেকশাস বা অসংক্রামক ব্যাধি বলতে বাত, শিরঃপীড়া, উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, ক্যান্সার ইত্যাদি অসংখ্য রোগকে বুঝায়। এ ধরনের রোগ ছোঁয়াচে নয়। এদের কারণ হিসেবে কোন জীবাণু বা ভাইরাস বা কোন রোগবিষকে সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা এ ধরনের রোগসমূহের কারণ খুঁজতে গিয়ে অনেক জটিল তথ্য জানতে পেরেছেন। ইমিউনোলজি বা রোগপ্রতিরোধ বিদ্যার বিকাশের পূর্বে চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা অসংক্রামক রোগের কারণ হিসাবে রোগ জীবাণুকেই দায়ী করতেন। কিন্তু পরবর্তীকালে বিজ্ঞানীরা প্রমাণ পেয়েছেন যে, দেহকে দূষণমুক্ত রাখার জন্য যে প্রতিরক্ষা বাহিনী নিয়োজিত রয়েছে, তাদেরই কর্মক্ষমতার বিশৃঙ্খলার কারণে মানবদেহের প্রায় সকল প্রকারের নন-ইনফেকশাস বা অসংক্রামক রোগের সৃষ্টি হচ্ছে। দূর্বল এবং অদক্ষ রোগপ্রতিরোধ বাহিনী যদি শক্তিশালী রোগবিষকে আক্রমণ করে দ্রুত ধবংস সাধন করতে ব্যর্থ হয় তাহলে দীর্ঘমেয়াদী লড়াই চলতে থাকে। এই লড়াইয়ের ফলে দেহের সুস্থ কোষ ক্ষতিগ্রস্ত কিংবা ধবংস প্রাপ্ত হতে থাকে। উদাহরণস্বরূপ, কোন দেশের দূর্বল রক্ষীবাহিনী যদি শক্তিশালী বহিরাগত শত্রুর সাথে দেশের মাটিতে লড়াই করে শত্রুকে দ্রুত নিশ্চিহ্ন করতে ব্যর্থ হয় এবং দীর্ঘ মেয়াদী লড়াইয়ে লিপ্ত হয়, তাহলে দেশের নিরীহ জনসাধারণই ক্ষতিগ্রস্ত হন। যাকে আমরা লড়াইয়ের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বলে আখ্যায়িত করতে পারি। এহেন পরিস্থিতিতে নানাবিধ রোগলক্ষণ সৃষ্টি হয় যেগুলোকে ইমিউনোলজি বিজ্ঞানের ভাষায় ইমিউনোলজিক্যাল ডিজঅর্ডার বা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার বিশৃঙ্খলা জনিত রোগ বলে আখ্যায়িত করা হয়।

স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে চান ?

স্বাস্থ্য পরীক্ষা সংক্রান্ত সেবা পেতে কল করুন ০১৯৩৬-০০৫৮৩৫ নম্বরে